হক্কানী আলিমে উনাদের খুছুছিওত

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন….nur e mujassam 2

নিশ্চয়ই মহান আল্লাহপাক উনাকে ভয় করেন উনার বান্দাদের মধ্যে যারা আলিম তারা।
এখন বলার বিষয় যেটা সেটা হচ্ছে যিনি আলিম হবেন তিনি অব্যশই আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করবেন। আর যে বা যারা আলিম দাবি করার পরও আল্লাহকে ভয় করবে না আল্লাহভিতী যার মধ্যে থাকবে না তারা মূলত আলিম না।
এজন্য বিখ্যাত তাবিয়ী ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত ইমাম হাসান বছরী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি এর ব্যাখ্যায় বলেন-

انما الفقيه

নিশ্চয়ই ফক্বীহ বা আলিম আল্লাহওয়ালা যিনি হবেন উনার যে ছিফত থাকা শর্ত তা হচ্ছে-

الزاهد فى الدنيا

তিনি অবশ্যই দুনিয়া থেকে বিরাগ হবেন।

والراغب الى الاخرة

পরকালের দিকে রুজু থাকবেন সব অবস্থায়

والبصير بذنبه

গোনাহ থেকে সবসময় সতর্ক থাকবেন।

والـمداوم على عبادة ربه

দায়িমীভাবে তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার ইবাদত বন্দিগীতে মশগুল থাকবেন।

والوارع

তিনি মুত্তাকী হবেন সুন্নতের পাবন্দ হবেন।

والكاف عن اعراض الـمسلمين

তিনি মুসলমানদের ইজ্জত সম্মান নষ্ট করবেন না।

والعفيف عن اموالـهم

এবং মুসলমাদের মাল বা ধন দৌলত-এর প্রতি লোভ করবেন না।

والناصح لجماعتهم

এবং মুসলমানদের তিনি সবসময় নছীহত করবেন।

এটা হচ্ছে বাহ্যিক অর্থ। আর এর আভ্যান্তরিন যে একটা অর্থ রয়েছে সেটা হচ্ছে যিনি হক্কানী রব্বানী আলিম হবেন তিনি

الزاهد فى الدنيا

অর্থাৎ গাইরুল্লাহ থেকে তিনি বিরত থাকবেন

والراغب الى الاخرة

সবসময় মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি রুজু থাকবেন। যার কারণে জাহিরী এবং বাতিনী জিসমানী এবং রূহানী বাহ্যিক আভ্যান্তরিন সমস্ত গোনাহ থেকে তিনি সতর্ক থাকবেন। কোন প্রকার গোনাহতে তিনি লিপ্ত হবেন না।

والـمداوم على عبادة ربه

এবং দায়িমীভাবেই তিনি জাহিরী-বাতিনী সমস্ত ইবাদতে মশগুল থাকবেন। সেটা বাহ্যিকভাবে সম্মানিত সুন্নত উনার ইত্তিবা। আভ্যান্তরিনভাবে। ক্বল্ব এবং নফস যত বদ খাছলত রয়েছে সেগুলো থেকে ইছলাহী লাভ করার জন্য তিনি মশগুল থাকবেন

والوارع

তিনি অবশ্যই মুত্তাকী হবেন।

যা মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-

ان اكرمكم عند الله اتقاكم

নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার কাছে সবচেয়ে বেশি সম্মানিত যিনি মুত্তাকী বা পরহেযগার অর্থাৎ যিনি সুন্নত উনার পাবন্দ তিনি।

والعفيف عن اموالهم

মুসলমানদের মাল-সম্পদ টাকা-পয়সা ধন- দৌলত ইত্যাদির প্রতি উনার কোন লোভ থাকবে না। মোহ, আকর্ষন থাকবেনা। অর্থাৎ তিনি সব অবস্থাতেই গইরুল্লাহ থেকে ফিরে মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের প্রতি রুজূ থাকবেন। যার কারণে তিনি নিজেও ইছলাহতে মশগুল থাকবেন এবং মানুষকে নছীহতে মশগুল রাখবেন। এটা হচ্ছে উলামায়ে হক্কানী রব্বানী উনাদের নিদর্শন। এর বিপরীতটা হচ্ছে উলামায়ে ‘সূ’দের নিদর্শন। এরা সবসময় দুনিয়াতে মশগুল থাকবে, পরকালের কথা তারা কখনও স্মরণ করবে না। আর এরা গোনাহকে কোন গুরুত্ব দিবে না। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে রয়েছে মুনাফিকের খাছলত হচ্ছে, সে পাহাড় পরিমান গোনাহ করলেও সে মনে করবে, সে কিছুই করেনি। নাউযূবিল্লাহ! আর ইবাদতকে সে কোন গুরুত্বই দিবে না। নাঊযুবিল্লাহ! বরং রসম-রেওয়াজ যা করার, সেটাই সে করবে। আর সুন্নত উনার পাবন্দ হওয়ার কোন প্রয়োজনই সে মনে করবে না। নাঊযুবিল্লাহ! সুন্নত উনাকে কোন গুরুত্ব দিবে না। নাঊযুবিল্লাহ! সে বলবে ফরয করলেই চলে, এতো সুন্নতের প্রয়োজন নেই। নাউযুবিল্লাহ! এবং সে সব সময়ই দুনিয়াবী ধন-দৌলত টাকা পয়সা ইত্যাদির দিকে মশগুল থাকবে এবং এসবের লোভে সে লালায়িত থাকবে। আর মুসলমানদের তো নছীহত করার প্রশ্নই আসে না বরং সে মানুষকে গইরুল্লাহর দিকে রুজূ করে দিবে। এটা হচ্ছে উলামায়ে ‘সূ’দের নিদর্শন। একদিক থেকে সে মহান আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করবে না অর্থাৎ আল্লাহভীতি বলতে যে বিষয়টি রয়েছে সেটা তার মধ্যে সম্পূর্ণ অনুপস্থিত থাকবে। আল্লাহভীতির লক্ষণ তার মধ্যে থাকবে না এবং সবসময়ই সে গইরুল্লাহতে মশগুল থাকবে। তার চাল-চলন, কথা-বার্তা, আচার-আচরন, উঠা-বসা, সবদিক থেকে অর্থাৎ কোন অবস্থাতেই সে মহান আল্লাহ পাক উনাকে স্মরণ করবে না। যেহেতু তার অন্তরে মহান আল্লাহ পাক উনার স্মরণ থাকবে না সেহেতু সে সবসময় গুনাহতে মশগুল থাকবে। ইবাদতের সাথে তার কোন সম্পর্ক থাকবে না যদিও সে ইবাদত করে। তবে সেটা রছম রেওয়াজ

فويل للمصلين

মহান আল্লাহ পাক তিনি বলেন মুছল্লি জাহান্নামে যাবে। কারণ সেতো মানুষকে দেখানোর জন্য নামায পড়ে থাকে। এই শ্রেণীর ইবাদতে সে মশগুল থাকবে। আর সুন্নত বলতে যা বুঝানো হয়েছে তা তার মধ্যে থাকবে না অর্থাৎ সে সুন্নত আমল করবে না বরং যত প্রকার বিদআত-বেশরা, কুফরী-শিরকী ও হারাম রয়েছে সেগুলিকে সে হালাল করার কাজে মশগুল থাকবে। নাউযুবিল্লাহ! এবং সব অবস্থাতেই দুনিয়াবী ধন-সম্পদ গইরুল্লাহ বলতে যা বুঝানো হয় তাতেই সে মশগুল থাকবে, আর তা হাছিলের কোশেশেই সে নিয়োজিত থাকবে এবং মানুষকে সে তাই বলবে। কারণ কিতাবে রয়েছে

كل اناء يترشح بما فيه

পাত্রে আছে যাহা, ঢালিলে পড়িবে তাহা। অর্থাৎ পাত্রে যেটা রয়েছে সেটাই পড়বে।

Advertisements